মোঃ এরশাদ (হাটহাজারী প্রতিনিধি)ঃ হাটহাজারী উপজেলার ১০নং উত্তর মাদার্শা ইউনিয়নের গরীব দূঃখী মেহনতি মানুষের কষ্টের যেন শেষ নেই। একদিকে করোনা আতংকিত মানুষ লক ডাউনে কর্মহীন বেকার, অন্যদিকে কালভার্ট সংস্কারের নামে দীর্ঘদিন সড়ক বন্ধ। ফলে লক ডাউনে থাকা সাধারন মানুষ একপ্রকার সরকারী বেসরকারী সাহায্য সহযোগিতা থেকে সম্পুর্ন বঞ্চিত হয়ে পড়েছে।

(বিজ্ঞাপন)

উত্তর মাদার্শা জোড়পুকুর পাড় (ব্যারিষ্টার সানাউল্লাহ সড়ক) মাদারীপুল সড়কের মদিনা একাডেমির পার্শ্ববতী কালভার্টের কাজ শুরু করে ওয়েল এন্টারপ্রাইজ নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্টান। কোন প্রকার বিকল্প সড়ক না করে সম্পর্ন সড়ক কেটে যানচলাচল এমনকি সাধারন মানুষ চলাচল পর্যন্ত বন্ধ করে রাখে।ফলে প্রতিদিন শত শত মানুষ অতীব প্রয়োজনে চলাচল করতে পারছেনা।

স্থানীয় কিছু যুবক ও ইউপি সদস্যর প্রচেষ্টায় কয়েকটা বাশঁ দিয়ে ছোটখাটো সাকোঁ তৈরি করে কোনভাবে সাধারন মানুষের চলাচলের ব্যাবস্থা করা হয়েছে।ঠিকাদারী প্রতিষ্টান কালভার্টের কাজ শুরু করার সময় স্থানীয়রা বার বার অন্তত মটর সাইকেল সিএনজি চলাচলের জন্য লোহার পাঠাতন বসিয়ে হলেও হালকা যানচলাচলের ব্যাস্থার অনুরোধ করেন।

স্থানীয়রা বার বার বলার পরও তারা কারো কথা কর্নপাত না করে পুরো রাস্তা কেটে কালভার্ট তৈরির কাজে হাত দেয়। স্থানীয়রা এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন মাসুদকে অতিবাহিত করলে তিনি বিকল্প সড়ক হিসেবে হালদার ভেড়ীবাধ দিয়ে যান চলাচল ও সাধারন মানুষকে চলাচলের পরামর্শ দেয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের কর্তাদের বার বার বলা হয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের একঘুয়েমির কারনে আজ সাধারন মানুষ নিধারুন কষ্টে আছে।

বর্তমান করোনা ভাইরাস লকডাউনের কারনে কাজ সম্পুর্ন বন্ধ না রাখলেও কখন যে এই সড়কে যানচলাচল করবে কেউ জানেনা। এমতবস্তায় সাধারন মানুষ চলাচল তো একপ্রকার বন্ধ সেই সাথে সরকারী বেসরকারী সাহায্য সহযোগিতা থেকেও ঐ এলাকার মানুষ বঞ্চিত।

লক ডাউনে কর্মহীন মানুষদের স্থানীয় ২/১জন সামর্থ্যনুযায়ী ত্রান দিলেও সড়কটির কালভার্ট সংস্কারেরর নামে সম্পুর্ন সড়ক বন্ধ করে দেয়ার কারনে সরকারী বেসরকারী সাহায্য ঐ এলাকায় পৌছায়নি।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন মাসুদ জানান,”করোনা ভাইরাসের কারনে লকডাউনে আছে বলেই কালভার্টের কাজ একটু ধীরগতীতে চলছে।কালভার্টের পাশ ছোট হবার কারনে বিকল্প সড়কের জায়গা না থাকায় ভেড়ীবাধের উপর যান চলাচল করার পরামর্শ দিয়েছি। বর্তমান মহা দূর্যোগে সাধারন মানুষের কষ্ট হচ্ছে তা জানি। খুব শিগ্রই আশা করি কালভার্টের কাজ শেষ করা হবে।”

(বিজ্ঞাপন)


এব্যাপারে হাটহাজারী উপজেলা চেয়ারম্যান রাশেদুল আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন “এই উত্তর মাদার্শা আমার জম্মস্থান। আমি নির্বাচিত হবার পরপরই এই সড়ক সংস্কার আমি করেছি স্বল্প পরিসরে। আমার এলাকার জনসাধারনের জন্য আমি প্রায় সড়কের কাজ করেছি এবং বাকী কিছু সড়কের কাজ শুরু করবো। বর্তমান বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের কারনে কালভার্ট ও সড়ক সংস্কারের কাজ কম চলছে। ইনশাআল্লাহ মহান আল্লাহ চাইলে খুব শিগ্রই এই মহাদূর্যোগ চলে যাবে। আমি নিজেই এই কাজের উপর তদারকি করছি। আশা করি কাজ দ্রুত শুরু হবে”।

স্থানীয় ব্যাক্তি কাজি আকতার হোসেন বাদল বলেন “ব্যাস্ততম এইসড়ক বন্ধ করে কালভার্ট নির্মান করার ফলে আমাদের প্রচন্ড সমস্যা হচ্ছে। সড়কের যানচলাচল সম্পুর্ন বন্ধ থাকার কারনে লগডাউনে থাকা সাধারন মানুষেরা সরকারী বেসরকারী সাহায্য থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে।এ ব্যাপারে আমরা হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উত্তর মাদার্শার কৃতি সন্তান নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

(বিজ্ঞাপন)
(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

মৃত্যু বেড়ে ৩১১১,…
বাংলাদেশে বিমানবন্দর উন্নয়নে…
দেশে করোনায় আরও…
কাল পবিত্র হজ
দোষী সাব্যস্ত মালয়েশিয়ার…
বিশ্বজুড়ে করোনা থেকে…
মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ…
গরুর মাংসের ঝাল…
ফের সীমান্তে ভারতীয়দের…

বৃহস্পতিবার শবে বরাত, তবে…

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিশ্বজুড়ে প্রাণহানি…

করোনাঃ মৃত্যু ১, নতুন…

হাটহাজারীতে এক হাজার পরিবারের…

বন্ধু নির্বাচন করনীয়