মালয়েশিয়া ও পাকিস্তানের পর এবার ভারতেও তাবলীগের মাধ্যমে করোনা ছড়িয়ে পড়ছে। ইতিমধ্যে দিল্লির নিজামুদ্দিনে তাবলীগের জমায়েতে অংশ নেয়া সাতজন করোনায় মারা গেছেন। তাবলীগের ওই কর্মসূচী থেকে আক্রান্ত হয়েছেন আরো অনেকে। ফলে ভারতে এই জমায়েত থেকেই করোনার কমিউনিটি সংক্রমণের আশঙ্কা তীব্র হল। এ খবর দিয়েছে ডয়েচে ভেলে। এর আগে মালয়েশিয়ায় তাবলীগের এক জমায়েত থেকে পুরো দেশ করোনায় ছেয়ে যায়।

কিন্তু পুলিশকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় এক তাবলীগকর্মী। ঘটনার পর পাকিস্তানে তাবলীগের কেন্দ্রীয় মসজিদ রাইভেন্ড মারকাজ ঘেরাও করে বাকিদের অবরুদ্ধ করে রেখেছে পুলিশ। ভারতে তাবলীগের জমায়েত থেকে ফিরে যাওয়ার পর কাশ্মীরে গিয়ে একজন আগেই মারা গিয়েছিলেন। তখনই তাবলীগের কর্মসূচির দিকে নজর আসে প্রশাসনের।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ১ থেকে ১৫ মার্চের মধ্যে দিল্লির ওই মসজিদে আয়োজিত তাবলিগ-ই-জামাতের জমায়েতে অংশ নেন দেন মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরব, কিরগিজস্তান থেকে দুই হাজারেরও বেশি প্রতিনিধি। সেখানে অংশ নেয়াদের মধ্যে এখন পর্যন্ত আটজনের মৃত্যু হয়েছে। আর এতে আক্রান্ত হয়েছে অন্তত ২৪ জন।

তাবলিগ-ই-জামাত উপলক্ষে জমায়েতকারীদের বিরুদ্ধে বড় একটি অভিযোগ এসেছে। ইন্দোনেশিয়া থেকে আসা ধর্ম প্রচারকরা ভিসার নিয়ম ভেঙেছেন বলে জানিয়েছে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

জানা গেছে, ইন্দোনেশিয়া থেকে প্রায় ৮০০ জন ধর্ম প্রচারক পর্যটন ভিসায় ভারতে আসেন। কিন্তু তারা এসে তিন দিনব্যাপী ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দেন। ভিসার নিয়ম ভাঙায় ইসলামী ধর্মীয় সংগঠন তাবলিগ-ই-জামাতের ইন্দোনেশিয়ার ৫০০ ধর্ম প্রচারককে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে বলে জানা গেছে।

ভারত ও ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে ভিসাচুক্তি রয়েছে। পর্যটকদের ভিসা অন অ্যারাইভাল দেয়া হয়। ওই ৮০০ জন দেশে এসে ভিসা নিয়ে অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, ওডিশা, বিহার, উত্তরপ্রদেশে ছড়িয়ে পড়েন।

করোনা পরিস্থিতিতে কেন্দ্র ও দিল্লি সরকারের মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে দিল্লির জমায়েতের এই ঘটনা। তিন দিনব্যাপী ওই অনুষ্ঠান দেশ-বিদেশ থেকে প্রায় আট হাজার মানুষের জমায়েত হয়েছিল। ফলে সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ সংক্রমণ ছড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ নিয়ে দিল্লিতে বৈঠক চলছে। মসজিদে জমায়েত হয়ে থাকা মানুষজনকে সরানো হয়েছে। পাঠানো হয়েছে আইসোলেশনেও।

দিল্লির ওই তাবলিগ জামাতে অংশ নেওয়া তিন শতাধিক মানুষকে দিল্লির বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা এখন হাসপাতালে আইসোলেশনে রয়েছেন। ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে ৯ ব্যক্তি ও তাদের মধ্যে একজনের স্ত্রীর দেহে করোনাভাইরাসে উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়েছে।

মসজিদটির তাবলিগ জামাতের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন যে মৌলানা তার নামে এফআইআর দায়েরের নির্দেশ দিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবন্দি কেজরিওয়াল। পুলিশ বলছে, তারা গত ২৪ মার্চ থেকে আয়োজকদের মসজিদটি খালি করে দেয়ার জন্য বলে আসছিলেন, কিন্তু দেশজুড়ে লকডাউন শুরু হওয়ায় অনেকে তাতে আটকা পড়েন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে মসজিদের ওই জামাতের মাধ্যমে ভাইরাসটি ভারতজুড়ে ব্যাপক হারে মানুষকে সংক্রমিত করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

ইসলাম গ্রহণ করলেন…
মৃত্যু বেড়ে ৩১১১,…
বাংলাদেশে বিমানবন্দর উন্নয়নে…
দেশে করোনায় আরও…
কাল পবিত্র হজ
দোষী সাব্যস্ত মালয়েশিয়ার…
বিশ্বজুড়ে করোনা থেকে…
আয়া সোফিয়া দ্বন্দ্বে…
মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ…

বৃহস্পতিবার শবে বরাত, তবে…

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিশ্বজুড়ে প্রাণহানি…

করোনাঃ মৃত্যু ১, নতুন…

হাটহাজারীতে এক হাজার পরিবারের…

বন্ধু নির্বাচন করনীয়